আমার দেখা রাজনীতির পঞ্চাশ বছর - আবুল মনসুর আহমদ Pdf Download

আমার দেখা রাজনীতির পঞ্চাশ বছর - আবুল মনসুর আহমদ Pdf Download

 

বইয়ের নাম: আমার দেখা রাজনীতির পঞ্চাশ বছর
লেখকের নাম: আবুল মনসুর আহমদ
ক্যাটাগরি: বাংলাদেশের রাজনৈতিক ইতিহাস বই
ফাইল ফরম্যাট: pdf (পিডিএফ)

ফাইল সাইজ: ২১ মেগাবাইট

মোট পেজ: ৬৭১ পৃষ্ঠা

আমার দেখা রাজনীতির পঞ্চাশ বছর - আবুল মনসুর আহমদ Pdf Download


আমার দেখা রাজনীতির পঞ্চাশ বছর রিভিউ

৬৪০ পেজের একটা বই পড়ে রিভিয়্যু লেখা আসলেই কঠিন। এখন পর্যন্ত আমার পড়া সবচেয়ে বড় বই। তিন পর্বে বইয়ের রিভিউ প্রকাশের ইচ্ছে আছে।

যাইহোক আবুল মনসুর আহমদ সাহেব আমাদের দেশের একজন বিশিষ্টজন ছিলেন তা সহজে বুঝতে তাঁর উত্তরসূরী মানে পুত্র তিতু মিয়াকে চিনলেই অনুমান করা যাবে। লেখকের পুত্র তিতু মিয়া(ডাক নাম) যাকে আমরা মাহফুজ আনাম নামে চিনি(সম্পাদক, ডেইলি স্টার)। এবং তার নাতনী তাহমিনা আনাম(মাহফুজ আনামের মেয়ে) যিনি ইতোমধ্যেই ত্রয়ী উপন্যাস লিখে বিশ্বে খ্যাতি অর্জন করেছেন। সব মিলিয়ে বলা যায় সহজাত সহিত্য চর্চায় অভ্যস্থ পরিবার।



লেখক সম্পূর্ণই একজন রাজনীতিবীদ, আওয়ামীলীগের প্রথম সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট, ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্টের শেরইবাংলা মন্ত্রিসভার প্রাদেশিক স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবং ১৯৫৬ সালের সোহরাওয়ার্দী মন্ত্রিসভার কেন্দ্রীয় শিল্প ও বাণিজ্য মন্ত্রী। রাজনীতিবীদরাও যে লেখক হতে পারে তার বড় দৃষ্টান্ত বৃটেনের তৎকালিন প্রধানমন্ত্রী উইস্টান চার্চিল, "দ্যা হিস্টরি অফ সেকেন্ড ওয়ার্ল্ড ওয়ার" লিখেই সোজা নোবেল ক্লাবে। মনসুর আহমদ রাজনীতির সাথে নিজের কলমও চালাতেন, তিনি একধারে রাজনীতিবীদ, সাংবাদিক, লেখক, লীডার এবং পরামর্শক। তাঁর লেখনীর জন্য ১৯৬০ সালে তিনি বাংলা একাডেমি পুরস্কার লাভ করেন।


বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা বঙ্গবন্ধু তার কাছ থেকে অনেক পরামর্শ যেমন পেয়েছেন, আবার সমালোচনার শূলেও বিদ্ধ হয়েছেন। মহত্ত্বা গান্ধী, জিন্না, ব্রিটিশ শাসন, শেরইবাংলা, সোহরাওয়ার্দী, ভাষাণী, চিত্তরঞ্জন দাশ, পাকিস্তান আমল এবং ১৯৭১ আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সব ঘটনার যৌক্তিক কারণ খুঁজে লেখক তার সম্পৃক্ততার কথার দিকেই বেশি দৃষ্টিপাত করার চেষ্টা করেছেন।

এটা লেখকের আত্নজীবনী কড়চাও বলা যায়। প্রজা, খেলাফত এবং অসহযোগ আন্দোলন থেকে শুরু করে বঙ্গবন্ধুর শাসনকাল পর্যন্ত তাঁর জীবনে প্রত্যক্ষ করা সব ঘটনার ধারাবাহিক বর্ণনা এবং বিশ্লেষণের গুরুত্ব বহন করা রচনার নামই "আমার দেখা রাজনীতির পঞ্চাশ বছর"।


লেখকের সবচেয়ে বড় গুন যেটি আমি আবিষ্কার করেছি, সেটি হলো সহজ সরল স্বীকারুক্তি। লেখক যাকে যখন যেখানে সম্মান দেওয়ার দরকার তা দিতে সততার পরিচয় দিয়েছেন এবং ভদ্রভাবে সমালোচনা করতেও পিছপা হননি। লেখনীর মধ্যে আত্মপ্রশংসার ছায়া ছিল, তবে তা কখনো অতিরঞ্জিত বলা যাবেনা। 



ছাত্রাবস্থা হইতেই সৈয়দ আহমদ ব্রেলভী এবং স্যার সৈয়দ আহমদ-এর একজন অনুসারী হিসাবে একটি বিশেষ রাজনৈতিক চিন্তা এবং আদর্শে বিশ্বাসী হইয়া আমার জীবন গড়িয়া উঠিয়াছে।
মরহুম আবুল মনসুর আহমদ-এর ‘আমার দেখা রাজনীতির পঞ্চাশ বছর’ বইখানিতে আমার আজীবনের লালিত স্বপ্ন এবং সেই চিন্তা ও আদর্শের প্রতিচ্ছবি রহিয়াছে।
এই ঐতিহাসিক বইখানি ছাপাইবার জন্য অনেক প্রকাশক লালায়িত আছেন। আমি জানি তাহাদের সেই লালসা শুধু আর্থিক কারণে রাজনৈতিক বা জাতীয় কোন উদ্দেশ্য সাধনের লক্ষ্যে নহে। কিন্তু এই বইখানি ছাপাইবার পিছনে আমার লালসা -আদর্শের, অর্থের নহে।
বইখানির লেখক মরহুম আবুল মনসুর আহমদ আমার মনের গভীরের সেই চিন্তা ও আদর্শের সন্ধান পাইয়াছিলেন এবং সেই কারণেই জীবদ্দশায় তিনি কখনই তাঁহার এই অমূল্য বইখানি প্রকাশনার সুযােগ হইতে আমাকে বঞ্চিত করেন নাই।
তাঁহার ইনতেকালের পর সময়ের বিবর্তনে সাময়িক পরিবর্তন হইলেও তাঁহার সুযােগ্য পুত্র এককালের সংগ্রামী ছাত্রনেতা, প্রখ্যাত লেখক ও সাংবাদিক, দৈনিক বাংলাদেশ টাইমস পত্রিকার প্রাক্তন সম্পাদক এবং দেশের সর্বাধিক প্রচারিত বিভিন্ন
দৈনিক পত্রিকার কলামিস্ট ভ্রাতৃপ্রতিম জনাব মহবুব আনাম তাঁহার সুযােগ্য পিতার মনের খবর জানিতেন বলিয়াই এই ঐতিহাসিক গ্রন্থ ‘আমার দেখা রাজনীতির পঞ্চাশ বছর’ প্রকাশনার দায়িত্ব এখনও পর্যন্ত আমার উপরেই রাখিয়াছেন।
জনাব মহবুব আনাম ইচ্ছা করিলে বইখানি প্রকাশনার দায়িত্ব অন্যকে দিয়া প্রচুর অর্থ পাইতে পারেন কিন্তু তিনি তাহা করেন নাই - তাহার এই উদারতা ও মহানুভবতার জন্য আমি চিরকৃতজ্ঞ।



Abul Mansur Ahmed Amar dekha rajnitir 100 bochor pdf free Download link: Click here

আরও দেখুন:

  • বাংলাদেশের ইতিহাস ১৯৭১-২০১৮ pdf


Previous Post
Next Post

post written by:

0 Comments: